কিসমিস খাওয়ার নিয়ম ও উপকারিতা

 বন্ধুগন আপনারা সকলেই জানেন,কিসমিস তৈরি হয় আঙ্গুর থেকেআঙ্গুরকে রোদে শুকিয়ে তৈরি করা হয় কিসমিস,তাই কিসমিস ফল আমাদের জন্য একটি উপকারি ফলএটি আমাদের শরিরের জন্য বিশেষ ভুমিকা রাখেতবে সেটা আমাদের জানতে হবে,কিসমিস কখন কিভাবে খাবেন,ভেজানো কিসমিস বেশি উপকারি না শুকনোচলুন তাহলে বিস্তারিত আলোচনা করি

ভেজানো কিসমিস এবং কিসমিসের পানি পান করলে শরির ভয়ংকর কয়েকটি রোগ থেকে রক্ষা পায়আপনি খাবার খাচ্ছেন অথচ হজম হচ্ছেনা,আপনার হজম শক্তি দুর্বল হওয়ার কারণে আপনার শরিরে পাঁচন শক্তি ভালোভাবে কাজ করতে না পারাই শরিরে তৈরি হচ্ছে একপ্রকার বিষ,আর এর মাধ্যমে শরিরে বাশা বাধছে  বিভিন্ন ধরনের রোগশরিরকে এই সব রোগ থেকে রক্ষা করতে দরকার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা এবং হজম শক্তি বৃদ্ধি করাএই সবকিছু সাহায্য করতে পারে ছোট এই কিসমিস ফলটিকিন্তু সেটা খাবার সঠিক সময় সঠিক নিয়ম আপনাকে জানতে হবেআজকে আপনাদের সব কিছু এই পোষ্টের ভিতরে আলোচনা করা করা হবে

কিসমিস খাওয়া সঠিক নিয়মঃ

১৫০ গ্রাম খুব ভালো করে ধুয়ে এক গ্লাস পানিতে ভিজিয়ে রাখুন সারা রাতসেই পানি পরের দিন সকালো হালকা গরম করে কিসমিস সহ খেয়ে নিবেন,তার পরে ৩০ মিনিট অন্য কোন খাবার খাওয়া চলবেনাসপ্তাহে মাত্র চার দিন যদি এভাবে খেতে পারেন তাহলে শরির থাকবে একদম সুস্থ

আরো জানুন  কিসমিসের উপকারঃ

কিসমিসের উপকারিতা নিচে আলোকপাত করা হলো -

রক্তচাপ কমায়ঃ

কিসমিসের প্রধান উপাদান পটাশিয়াম রক্তের চাপ কমাতে সাহায্য করেশরিরে থাকা উচ্চ মাত্রার সোডিয়াম রক্তচাপ বাড়ার প্রধান কারণ,কিসমিসের পটাশিয়াম শরিরের সোডিয়াম নিয়ন্ত্রণ রাখেশরিরের রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ থাকে মানে হার্ট ভালো থাকে

 ওজন নিয়ন্ত্রণঃ 

যদি কারো ওজন কম হয় বা অতিরিক্ত ওজনের কারণে কেউ সমস্যায় ভুগে থাকেন তাহলে সাত-দশ দিন  নিয়মিত কিসমিস খানআপনি নিজেই এর ফলা ফল পেয়ে যাবেন

 মস্তিষ্কের জন্য কিসমিস খুব উপকারীঃ

ছোট বাচ্চাদের লেখাপড়ার প্রতি মনোযোগ করতে কিসমিস অবশ্যই দিবেনকিসমিসে আছে ব্রণ যা ধ্যাণ বাড়াতে সাহায্য করে

 দৃষ্টি শক্তি বৃদ্ধি করেঃ

কিসমিসে রয়েছে ভিটামিন-, ভিটামিন বিটা ক্যারোটিন এবং এন্টি অক্সিজেন থাকার কারণে চোখের ফ্রি রেডিকেল দুর হয়দৃষ্টি শক্তি হ্রাস পাওয়া বা চোখে ছানি পড়ার মত ঘটনা কখনো ঘটেনাযদি নিয়মিত কিসমিস খাওয়া যায়

 

Comments

Popular posts from this blog

পঞ্চম শ্রেণি আমাদের পরিবেশ - banglaallnews.com

৫ম শ্রেণির বিজ্ঞান ২য় অধ্যায় প্রশ্ন উত্তর

হলে সিটের জন্য আবেদন পত্র লেখার নিয়ম